বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৮ | ২, কার্তিক, ১৪২৫
 / রাজনীতি / ‘সাংবিধানিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে বেগম জিয়াকে’
ডেসটিনি অনলাইন :
Published : Wednesday, 11 July, 2018 at 1:02 PM, Update: 11.07.2018 1:13:28 PM, Count : 208
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

মিথ্যা ও সাজানো রাজনৈতিক মামমলায় কারাগারে বন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে কারাবিধি লঙ্ঘন করে ১১ দিন যাবত তাঁর পরিবারের লোকজনসহ কাউকেই দেখা করতে দেয়া হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ বুধবার (১১ জুলাই) সকালে দলের নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব এসব কথা বলেন।


তিনি বলেছেন, কারাবন্দি হিসেবে বেগম জিয়ার যে সাংবিধানিক অধিকার পাবার কথা সেটি থেকেও তাকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। ১১ দিন যাবত তাঁর সাথে পরিবারের লোকজনও দেখা করতে পারছেন না। ৩০ জুন সর্বশেষে তারা দেখা করেছেন। আমরা তো পারছিই না। এমনকি আইনজীবী ও তাঁর চিকিৎসকরাও দেখা করতে পারছেন না।


তিনি বলেনে, জেলকোডের বিধানমতে বেগম খালেদা জিয়ার সাথে আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুদের দেখা না করতে দেওয়া তাঁর এবং বিএনপি নেতৃবৃন্দের প্রতি মানবাধিকার লঙ্ঘন। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বন্দী হিসেবে আটক রাখার পর তিনি কারাবিধির ৬১৭ বিধি অনুসারে ডিভিশন-১ প্রাপ্ত হন। ডিভিশন-১ প্রাপ্ত বন্দীর সাথে সাক্ষাৎ করার জন্য কারাবিধির সপ্তদশ অধ্যায়ে (বিধি-৬৬৩-৬৮১) বর্ণিত অধিকারে খালেদা জিয়ার সাথে তাঁর রাজনৈতিক সহকর্মী/বন্ধুবান্ধবের সাক্ষাৎকারের বিষয়টি বিশদভাবে বলা আছে।

তিনি আরো বলেন, উপরোক্ত বিধানের অতিরিক্ত হিসাবে আরও বলা যায় যে, বেগম খালেদা জিয়া যেহেতু সাজার মামলায় জামিনে আছেন, সেহেতু তাঁকে সাজাপ্রাপ্ত বন্দী হিসেবে বিবেচনা না করে বিচারাধীন মামলায় বন্দী হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। সে হিসেবেও কারাবিধির সপ্তবিংশ অধ্যয়ে (বিধি-৯০৯-৯১০) অনুসারে তিনি প্রথম শ্রেণীর ডিভিশন প্রাপ্ত বন্দী। সেখানেও তাঁর রাজনৈতিক সহকর্মী/বন্ধুদের সাক্ষাতের অধিকার বিধি-৬৮২-তে প্রদান করা আছে।

শুধু তাই নয়, কারাবিধির ৮০ (৪) বিধি অনুসারে বেগম খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাতকালে কারাগারের প্রশাসন সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সাক্ষাৎ প্রার্থীর মতামত অন্তর্ভূক্তির জন্য নির্ধারিত ভিজিট বই রাখার বিধানও করা হয়েছে বলেও যোগ করনে তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বেগম খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত আসামী হিসেবে কারাবিধি অনুসারে এখন গণ্য হবেন না। কারণ তিনি সাজার মামলায় জামিনে আছেন। ফলে বিচারাধীন মামলায় আসামী হিসেবে কারাবিধির ৬৮২-তে প্রদত্ত অধিকার বাদেও কারা আইন ১৮৯৪ এর ধারা ৪০ এর বিধানমতে তাঁর রাজনৈতিক সহকর্মী/বন্ধুদের সাক্ষাতের অধিকার রাখেন।

জনাব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এখানে একটি কথা উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, বেগম খালেদা জিয়ার সাথে একজন নারী কর্মীকে থাকার অনুমতি দিয়ে সরকার যে বাহবা নেওয়ার চেষ্টা করছেন তা জাতির সাথে ধোকাবাজি করা। কারণ কারাবিধি ৯৪৮ অনুসারে সরকার একজন মহিলা কর্মী দিতে বাধ্য।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা শুরু থেকেই বলছি বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলার ফাঁদ পাতা হয়েছিল। আলাদা আদালত বানিয়ে তাকে দ্রুত সাঁজা দেয়া হয়েছে। উদ্দেশ্য একটাই রাজনীতি থেকে সরিয়ে দেয়া। তাকে সরিয়ে দিতে পারলেই তাদের পথের কাটা দূর হবে।


এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, আমরা আশঙ্কা করছি বেগম জিয়াকে পৃথিবী থেকেই সরিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র হচ্ছে কিনা।


সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাড. রুহুল কবির রিজভী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সাবেক সাংসদ সালাউদ্দীন আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


দৈনিক ডেসটিনি’র অনলাইনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


প্রকাশক ও সম্পাদক : মোহাম্মদ রফিকুল আমীন।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মিয়া বাবর হোসেন।
© ২০০৬-২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক ডেসটিনি.কম
আলী’স সেন্টার, ৪০ বিজয়নগর ঢাকা-১০০০।
বিজ্ঞাপন : ০১৫৩৬১৭০০২৪, ৭১৭০২৮০
email: ddaddtoday@gmail.com, ওয়েবসাইট : www.dainik-destiny.com
ই-মেইল : destinyout@yahoo.com, অনলাইন নিউজ : destinyonline24@gmail.com
Destiny Online : +8801719 472 162