মঙ্গলবার, আগস্ট ১৪, ২০১৮ | ৩০, শ্রাবণ, ১৪২৫
 / শেয়ার বাজার ও বাণিজ্য / শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংকটে পোশাকশিল্প
বিজিএমইএ- ভবনে সংবাদ সম্মেলন
ডেসটিনি অনলাইন :
Published : Monday, 6 August, 2018 at 9:53 PM, Count : 70
শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংকটে পোশাকশিল্প

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংকটে পোশাকশিল্প

বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ)  সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেছেন, নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সবচেয়ে বেশি সংকটে পড়েছে রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাকশিল্প। সোমবার রাজধানীর কারওয়ানবাজারে বিজিএমইএ ভবনে ছাত্র আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে উদ্ভূত পরিস্থিতি বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

বিজিএমইএর সভাপতি বলেন, আমরা শঙ্কার সাথে লক্ষ্য করছি, ছাত্ররা ঘরে ফিরে গেলেও যানবাহন পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক হতে পারেনি। সড়ক ও মহাসড়কগুলোতে পর্যাপ্ত যানবাহন নামেনি। ফলে, জনগণকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি সংকটে পড়েছে রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাকশিল্প। এমনিতেই আমরা গত এক সপ্তাহে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক দিয়ে ঠিকমতো পোশাকশিল্পের আমদানি ও রপ্তানি পণ্য আনা-নেওয়া করতে পারিনি। বন্দরে কন্টেইনার ভর্তি রপ্তানিতব্য পণ্য পড়ে আছে। জাহাজিকরণের অপেক্ষায় কারখানায় পড়ে আছে তৈরি পণ্য।

সিদ্দিকুর রহমান বলেন, যানবাহন পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে অনেক কারখানা স্টকলটের শিকার হবে। অনেক কারখানা এয়ার ফ্রেইট করতে বাধ্য হবে। আর এর মাশুল দিতে হবে পোশাকশিল্পকে। আমরা যখন অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্সের সকল শর্ত পূরণ করে নিজেদের মতো করে চলার প্রস্তুতি নিচ্ছি, তখন এ ধরনের অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি আমাদেরকে পিছিয়ে দেয়। আমরা হতোদ্যম হয়ে পড়ি। ক্রেতাদেরও আস্থাহানি ঘটে। শিল্পের ভাবমূর্তি ও দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়, যা মোটেই কাম্য নয়। আমরা এমন কোনো কর্মকান্ড চাই না, যা মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা বাধাগ্রস্ত ও স্থবির করে দেয়, অর্থনৈতিক কর্মকান্ডকে ব্যাহত করে, ব্যবসা-বাণিজ্য পিছিয়ে দেয়।

তিনি আরো বলেন, গত ২৯ জুলাই দুঃখজনক বাস দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থী রাজীব ও মীমের মর্মান্তিক মৃত্যুতে আমরা মর্মাহত। আমি আন্দোলনকারী কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানাই এজন্য যে, তারা প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সড়ক ছেড়ে ঘরে ফিরে গেছে এবং আমাদের এই সন্তানেরা যে কাজটি করেছে তা বিশাল। তারা সকলকেই দেখিয়ে দিয়েছে ও বুঝিয়ে দিয়েছে যে, সড়কে কত নৈরাজ্য রয়েছে, কত বিশৃঙ্খলা রয়েছে। তাদের এই আন্দোলন সকলের টনক নড়িয়ে দিয়েছে, সকলের মধ্যে নৈতিকতাবোধ ও কর্তব্যবোধ জাগিয়ে তুলেছে, আইন প্রয়োগে নৈতিক ভিত্তি দিয়েছে। তাই নিরাপদ সড়কের জন্য অনেক বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে। কঠোর আইন যেমন দরকার, এর যথাযথ প্রয়োগও তেমনই নিশ্চিত করতে হবে। চালকদেরকে নিয়মিতভাবে যথাযথ প্রশিক্ষণ দিতে হবে। যাত্রী, চালকসহ সবাইকে সচেতন হতে হবে। অপ্রাপ্তবয়স্ক চালক দ্বারা গাড়ি চালানো বন্ধ করতে হবে।


দৈনিক ডেসটিনি’র অনলাইনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


প্রকাশক ও সম্পাদক : মোহাম্মদ রফিকুল আমীন।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মিয়া বাবর হোসেন।
© ২০০৬-২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক ডেসটিনি.কম
আলী’স সেন্টার, ৪০ বিজয়নগর ঢাকা-১০০০।
বিজ্ঞাপন : ০১৫৩৬১৭০০২৪, ৭১৭০২৮০
email: ddaddtoday@gmail.com, ওয়েবসাইট : www.dainik-destiny.com
ই-মেইল : destinyout@yahoo.com, অনলাইন নিউজ : destinyonline24@gmail.com
Destiny Online : +8801719 472 162