রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮ | ৪, অগ্রহায়ণ, ১৪২৫
 / তথ্য ও প্রযুক্তি / নষ্ট মোবাইল ফোনও মৃত্যুর কারণ!
তথ্য ও প্রযুক্তি ডেস্ক, ডেসটিনি অনলাইন :
Published : Sunday, 2 September, 2018 at 7:03 PM, Update: 02.09.2018 7:07:36 PM, Count : 282
নষ্ট মোবাইল ফোনও মৃত্যুর কারণ!

নষ্ট মোবাইল ফোনও মৃত্যুর কারণ!

ইলেক্ট্রনিক বর্জ্য বা ই-বর্জ্য। আধুনিকতার এই যুগে প্রযুক্তির উৎকর্ষতার সঙ্গে ব্যবহারের পর অপ্রয়োজনীয় ইলেক্ট্রনিক পণ্য ভয়াবহ রূপ নিতে শুরু করেছে। এ বিষয়ে বিশ্লেষকরা বলছেন, এখন থেকেই যদি ই-বর্জের ভয়াবহতা রোধ করা না যায় তাহলে খুব শিগগিরই নষ্ট হয়ে যাবে এই সবুজ পৃথিবী। আর যার মূলে থাকবে নষ্ট ইলেক্ট্রনিক পণ্যের ভাগাড়ে।

হলিউডের অ্যানিমেশন ‘ওয়াল-ই’ মুভিটি ই-বর্জের ভয়াবহতা কেন্দ্রীক। মুভিতে দেখানো হয়েছে, কেবল মাত্র নষ্ট হওয়া ইলেক্ট্রনিক পণ্যের বিষের কারণে পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছে সবুজ। পৃথিবী এক সময় বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ে ও বসবাসের জন্য লোকজন আশ্রয় নিতে থাকে অন্য গ্রহে।

প্রতিদিনই বিশ্বে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়েই চলছে। এভাবে যদি নিয়মিত বাড়তে থাকে তাহলে পৃথিবীর ভবিষ্যৎ সিনেমার গল্পের ন্যায় বাস্তবে রূপ নিবে।

জাতিসংঘের এক গবেষণা এ বিষয়ে বলছে, শুধু মাত্র গত বছরই বিশ্বে ই-বর্জের জন্ম হয়েছে ১১ কোটি টন। আর এটি গত বছরের থেকে ৩০ শতাংশ হার বেশি। যদি বিগত ১০ বছরের কথা বলা হয় তাহলে গত ১০ বছরের ই-বর্জ্য বেড়েছে ৫০০ গুণ। সেই সাথে বাড়ছে ঝুঁকি। এদিকে বাংলাদেশে ই-বর্জ্য দাঁড়িয়েছে এখন প্রায় ২৫ লাখ টনে।

বুয়েটের অধ্যাপক ও ই-বর্জ্য গবেষক ইয়াসির আরাফাত এ প্রসঙ্গে বলছেন, ই-বর্জ্য প্রতি বছর যে হারে বাড়ছে এর প্রতিক্রিয়া একটা সময়ে দেখা যাবে। সেই সময়ে প্রজন্মের পর প্রজন্ম এর নেতিবাচকতা ভোগ করবে। যদিও এখন আমরা এর ভয়াবহতা স্পষ্ট বুঝে উঠতে পারছি না। কিন্তু খুব শিগগিরই আমরা এর ভয়াবহতা আঁচ করতে পারব। তাই এখনই ই-বর্জ্যের ভয়াবহতা রোধ করা সম্ভব না হলে এর জন্য চরম মূল্য দিতে হবে বাংলাদেশকে।

ই-বর্জ্যের ভয়াবহতা থেকে বাঁচার উপায় হচ্ছে রিসাইকেল মাধ্যম। কিন্তু তার আগে প্রয়োজন সচেতনতা।

পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সোবহান এ বিষয়ে বলেছেন, রিসাইকেলের মাধ্যমে ই-বর্জ্যের ভয়াবহতা থেকে বাঁচা সম্ভব। পণ্যটি যারা বিক্রি করছে তারা যদি ব্যবহার শেষে স্বল্পমূল্যে পণ্যটি আবার ক্রয় করে রিসাইক্লিং করার পদ্ধতি চালু করে তবে যেমন একদিকে পরিবেশ বাঁচবে, অন্যদিকে সম্পদের পুনঃব্যবহার হবে।
 
এছাড়াও তারা যাচাই-বাছাই শেষ হলেও দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা ‘ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিধিমালা’ সংসদে পাশ করানোর জন্য আহবান জানান।


দৈনিক ডেসটিনি’র অনলাইনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


প্রকাশক ও সম্পাদক : মোহাম্মদ রফিকুল আমীন।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মিয়া বাবর হোসেন।
© ২০০৬-২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক ডেসটিনি.কম
আলী’স সেন্টার, ৪০ বিজয়নগর ঢাকা-১০০০।
বিজ্ঞাপন : ০১৫৩৬১৭০০২৪, ৭১৭০২৮০
email: ddaddtoday@gmail.com, ওয়েবসাইট : www.dainik-destiny.com
ই-মেইল : destinyout@yahoo.com, অনলাইন নিউজ : destinyonline24@gmail.com
Destiny Online : +8801719 472 162