সোমবার, নভেম্বর ১৯, ২০১৮ | ৫, অগ্রহায়ণ, ১৪২৫
 / শেষ পাতা / সুনামগঞ্জ-৫ আসনে সম্ভাব্য ১৪ প্রার্থী গণসংযোগে ব্যস্ত
আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাপার একাধিক প্রার্থী মাঠে
মোশাহিদ আলী, ছাতক (সুনামগঞ্জ)
Published : Thursday, 8 November, 2018 at 9:32 PM, Count : 327
সুনামগঞ্জ-৫ আসনে সম্ভাব্য ১৪ প্রার্থী গণসংযোগে ব্যস্ত

সুনামগঞ্জ-৫ আসনে সম্ভাব্য ১৪ প্রার্থী গণসংযোগে ব্যস্ত

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার) আসনে কাজ করে যাচ্ছেন জোট-মহাজোটের প্রার্থীরা। সভা-সমাবেশ, গণসংযোগ, মতবিনিময় ও উঠান বৈঠকের মাধ্যমে ভোটারদের কাছে জানিয়ে দিচ্ছেন প্রার্থিতার কথা। প্রার্থীরাও ভোটারদের কাছে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকা-ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যাচ্ছেন। তাই ভোটারদের মন জয় করতে প্রার্থীরা তাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন আর সব সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করছেন। নিজ নিজ বলয়ে ভোট ব্যাংক তৈরি করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা। বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকসহ আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, খেলাফত মজলিশ ও স্বতন্ত্র সম্ভাব্য ১৪ জন প্রার্থী মাঠে রয়েছেন।
সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যে ছাতক-দোয়ারাবাজার আসন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আসনটি বর্তমানে আওয়ামী লীগের দখলে রয়েছে। কিন্তু আসনটি পুনরুদ্ধারে কাজ করে যাচ্ছেন বিএনপি ও এর শরিকদল। জাতীয় পার্টিও আসনটি তাদের পক্ষে নিতে মাঠে কাজ করছে।
জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের রয়েছেন দুই প্রার্থী। বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ও জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদ চৌধুরী। এরা দুজনই আ’লীগের হেভিওয়েট প্রার্থী। কে পাচ্ছেন দলীয় প্রতীক নৌকা, কে হবেন নৌকার মাঝি, মানিক না শামীমÑ সেদিকে চেয়ে আছেন তাদের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা।
সম্প্রতি আ’লীগের এ দুই প্রার্থী দোয়ারাবাজারে পাল্টাপাল্টি গণসমাবেশ করেছেন। শামীম আহমদ চৌধুরী নৌকার সমর্থনে দোয়ারাবাজারে বিশাল গণসমাবেশ করেন এবং নিজের প্রার্থিতার কথা বলে নৌকায় ভোট চান। এর পর ২০ অক্টোবর এমপি মুহিবুর রহমান মানিক দোয়ারাবাজার সরকারি মডেল হাইস্কুল মাঠে বিশাল গণসমাবেশ করে বিভিন্ন উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে নৌকার পক্ষে নিজের প্রার্থিতার কথা জানান দিয়ে তিনিও নৌকায় ভোট চান দোয়ারাবাসীর কাছে। এ আসনে তারা কেউ কাউকে ছাড় দিতে নারাজ।
এদিকে এই আসনে বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক, সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি, সাবেক সংসদ সদস্য কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন। খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ ৭ দফা দাবি আদায়ে তৃণমূল নেতাকর্মীদের নিয়ে নানা কর্মসূচি পালন করে যাচ্ছেন। পাশাপাশি আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকের সমর্থনে তিনি সভা-সামাবেশ, গণসংযোগ করে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তার দৃষ্টিতে দেশে নির্বাচনী সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি হলে দল তাকেই মনোনয়ন দেবে। এ আসনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী মিজান শক্তশালী অবস্থানে মাঠে রয়েছেন। তিনিও দলীয় মনোনয়ন পেতে ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছেন। তার দাবিÑ এবার এ আসনে দলীয় হাইকমান্ড তাকেই মনোনয়ন দেবে। বিএনপি নেতৃতাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক দল খেলাফত মজলিশের কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শফিক উদ্দিন মনোনয়ন পেতে কোমর বেঁধে মাঠে রয়েছেন। নির্বাচনকে সামনে রেখে দুই উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সভা, সমাবেশ, গণসংযোগ ও মতবিনিময় অব্যাহত রেখেছেন। ২০০১ সাল থেকে তিনি ছাতক-দোয়ারাবাজার উপজেলার কাজ করে যাচ্ছেন। এ হিসেবে দুই উপজেলায় জুড়ে তার রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি ও ভোট ব্যংক। মাওলানা শফিক উদ্দিন বলেন, ২০০১ সালে ৪ দলীয় জোটের তৎকালীন রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এ আসনটি ছাড় দিলেও এবার তার দলের হাইকমান্ড রয়েছে কঠোর অবস্থানে। তিনি এবার এ আসনে ২০ দলীয় জোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী। দলীয় ছাড়াও নিজের ব্যক্তি ইমেজে দুই উপজেলায় তার বিশাল ভোট ব্যাংক রয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।
জাতীয় পার্টির একাধিক প্রার্থী মাঠে রয়েছেন। এর মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য জাহাঙ্গীর আলম। তিনি দীর্ঘদিন ধরে এ আসনে লাঙ্গলের পক্ষে কাজ করছেন। নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে তিনি দুই উপজেলায় গণসংযোগ ও মতবিনিময় করে ব্যস্ত সময় পার করছেন। নদীভাঙন প্রতিরোধ, স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়ন, কারিগরি শিক্ষার প্রসার, বেকারত্ব দূরীকরণ, যোগাযোগ ব্যবস্থায় আধুনিকরণসহ অবহেলিত ছাতক ও দোয়ারাবাজারের কাক্সিক্ষত উন্নয়নে তিনি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। এখানে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির আরেক সদস্য ও লন্ডন টাওয়ার হ্যামলেটসের কাউন্সিলর রুহুল আমীনও মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন। তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে এ আসনে সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন। এর পর থেকে তিনি উন্নয়নবঞ্চিত মানুষের পক্ষে কাজ করছেন। তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে দুই উপজেলায় সভা, গণসংযোগ ও মতবিনিমিয় এবং প্রার্থিতার কথা জানান দিচ্ছেন।
এছাড়া সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আবদুল মজিদ মাস্টার, জাপার কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আ ন ম ওহিদ কনা মিয়া, জাপা নেতা অ্যাডভোকেট আবুল হাসান নির্বাচনকে সামনে রেখে নিজেদের ভোট ব্যাংক তৈরি করতে মাঠে মতবিনিময় ও গণসংযোগ করছেন।
জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় তাদের কোনো প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে না। তবে এ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাওলানা আবদুস সালাম আল মাদানি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন বলে গুঞ্জন রয়েছে।
দোয়ারাবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশের আহ্বায়ক ফরিদ আহমদ তারেক, বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার সৈয়দ মুনসিফ আলী ও প্রবাসী কমিউনিটি নেতা, ব্রিজ একাডেমির চেয়ারম্যান আয়ুব করম আলী পরিবর্তনের সেøাগান নিয়ে প্রার্থী হিসেবে মাঠে সভা, মতবিনিময়, গণসংযোগ ও উঠান বৈঠক করে ব্যস্ত সময় পার করছেন।


দৈনিক ডেসটিনি’র অনলাইনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
প্রকাশক ও সম্পাদক : মোহাম্মদ রফিকুল আমীন।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মিয়া বাবর হোসেন।
© ২০০৬-২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক ডেসটিনি.কম
আলী’স সেন্টার, ৪০ বিজয়নগর ঢাকা-১০০০।
বিজ্ঞাপন : ০১৫৩৬১৭০০২৪, ৭১৭০২৮০
email: ddaddtoday@gmail.com, ওয়েবসাইট : www.dainik-destiny.com
ই-মেইল : destinyout@yahoo.com, অনলাইন নিউজ : destinyonline24@gmail.com
Destiny Online : +8801719 472 162