আজ বুধবার, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
 / প্রথম পাতা / ‘মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধ’ শুরু করে মিত্রবাহিনী
কাঞ্চন কুমার দে
Published : Thursday, 7 December, 2017 at 9:50 PM, Count : 22
‘মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধ’ শুরু করে মিত্রবাহিনী

‘মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধ’ শুরু করে মিত্রবাহিনী

ডিসেম্বরের শুরুতেই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ও ভারতীয় যৌথবাহিনীর আক্রমণ তীব্র আকার ধারণ করে। এ সময় পাকিস্তানিদের মনোবল ভেঙ্গে দেয়ার জন্য একটি ভিন্ন কৌশল নেয়া হয়। পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে সেনা, নৌ ও বিমান আক্রমণের পাশাপাশি ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল এস এইচ এফ মানেকশ যুদ্ধে শত্রুর মনোবল ভেঙ্গে দেয়ার জন্য ‘মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধ’ শুরু করেন। বেতার ভাষণে তিনি পাকবাহিনীর নাজুক অবস্থা তুলে ধরে বলেন, তাদের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলা হয়েছে। অতএব, আত্মসমর্পণ ছাড়া তাদের কোনো গত্যন্তর নেই। মানেকশর এই কৌশল পরবর্তী সময়ে পাকবাহিনীর মনোবল ভাঙ্গতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছিল বলে অনেকে বলেছেন।
এ ব্যাপরে নিয়াজী তার ‘দ্য বিট্রেয়ার অব ইস্ট পাকিস্তান’ বইতে লিখেছেন- ‘বিরুদ্ধ প্রপাগা-া এবং ইয়াহিয়া সরকারের ত্রুটিপূর্ণ পররাষ্ট্র নীতির কারণে পাকিস্তান সম্পূর্ণভাবে কূটনৈতিক, রাজনৈতিক এবং মনস্তাত্ত্বিকভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।’ সম্ভবত এরপর থেকেই পাকবাহিনী মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণের পথ খুঁজতে থাকে। আত্মসমর্পণের জন্য তিনদিন সময় বেঁধে দেয়ার পর ঘোষণায় বার বার বলা হয়Ñ এই সময়ের মধ্যে আত্মসমর্পণ না করলে মৃত্যু অনিবার্য। হয় সারেন্ডার- না হয় মৃত্যু’- এ রকমই ছিল ঘোষণা।
জেনারেল এস এইচ এফ মানেকশর এই কৌশল পাকবাহিনীর মনোবল ভাঙ্গতে সহায়ক হয়। পাকবাহিনী বিভিন্ন জায়গায় প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করলেও তা তেমন সফল হয়নি। ভারতীয় জেনারেল জ্যাকবও বিভিন্ন মাধ্যমে এ সময় নিয়াজীকে আত্মসমর্পণে রাজি করাতে চেষ্টা করেন। ঢাকায় অবস্থিত জাতিসংঘ প্রতিনিধি মার্ক হেনরী ও জন কেলিও এ ব্যাপারে তৎপরতা চালান।
জ্যাকব সরাসরি পাকবাহিনীর উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেন। এসব কর্মকর্তা তখন সামরিক ও আধাসামরিক বাহিনী এবং সংখ্যালঘু জাতিসত্ত্বাগুলোর নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দাবি করে।
জবাবে মিত্রবাহিনীর পক্ষ থেকে জেনেভা কনভেনশন অনুযায়ী সকল বন্দিদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানানো হয়। এরপরই আত্মসমর্পণের খসড়া দলিল লেখার কাজ শুরু হয়। লেখা শেষে ভারতীয় সেনাবাহিনীর হেডকোয়ার্টারে এটি প্রেরিত হয়।




দৈনিক ডেসটিনি’র অনলাইনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


প্রকাশক ও সম্পাদক : মোহাম্মদ রফিকুল আমীন।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মিয়া বাবর হোসেন।
© ২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক ডেসটিনি.কম
আলী’স সেন্টার, ৪০ বিজয়নগর ঢাকা-১০০০।
বিজ্ঞাপন : ০১৫৩৬১৭০০২৪, ৭১৭০২৮০
email: ddaddtoday@gmail.com, ওয়েবসাইট : www.dainik-destiny.com
ই-মেইল : destinyout@yahoo.com, অনলাইন নিউজ : destinyonline24@gmail.com
Destiny Online : +8801719 472 162