এই মাত্র পাওয়া : * নির্বাচনী আচরণ বিধি মেনে চলতে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে আ‘লীগ-বিএনপিসহ ৪ মেয়র প্রার্থীকে ইসির সতর্কতা ।* সরকারি চাকুরিতে ৩০ শতাংশ কোটা বহালের দাবি মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের।* কারাগারে বেগম জিয়ার স্বাস্থ্যের অবনতি হলে দায় সরকারের : মির্জা ফখরুল* উত্তর কোরিয়ায় সব ধরনের পারমাণবিক পরীক্ষা বন্ধের ঘোষণা।* রাজধানীর বাস-মিনিবাসগুলোর মধ্যে ৮৭ ভাগই পরিবহন নৈরাজ্যে জড়িত।* কমন ওয়েলথ জোটকে কার্যকর করতে সংস্কারের আহবান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার।
রবিবার, এপ্রিল ২২, ২০১৮ | ৮, বৈশাখ, ১৪২৫
 / বিনোদন / মেলায় খেলে জিহবা, ঠোঁটে লেগে যেত: পরীমনি
ডেসটিনি অনলাইন :
Published : Saturday, 14 April, 2018 at 2:52 PM, Count : 307
মেলায় খেলে জিহবা, ঠোঁটে লেগে যেত: পরীমনি

মেলায় খেলে জিহবা, ঠোঁটে লেগে যেত: পরীমনি

পরীমনি হলেন একজন বাংলাদেশী মডেল ও অভিনেত্রী। ২০১৫ সালে ‘ভালোবাসা সীমাহীন’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তার বড় পর্দায় অভিষেক হয়। রানা প্লাজা (২০১৫) ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়ে তিনি আলোচনায় আসেন। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল রোম্যান্টিক ‘আরো ভালোবাসবো তোমায়’, লোককাহিনী নির্ভর মহুয়া সুন্দরী, এবং অ্যাকশনধর্মী রক্ত।

পরীমনি বাংলা বর্ষবরণের বিষয়ে জানিয়েছেন তার শৈশবের স্মৃতিময় ঘটনা। বৈশাখীমেলায় তার উপলব্ধি সম্পর্কে মুখ খুলেছেন এই অভিনেত্রী।

পরীমনি বলেন, এখন দায়িত্ব পালন করতে করতে বৈশাখ চলে যায়। বলা যায় দায়িত্বময় বৈশাখ। বন্ধুদের আবদার রাখতে হয়। তাদের আবদার থাকে যেমন আমার হাতের ইলিশ ভাজা, আমার হাতের রান্না-এইসব। এগুলো উপভোগ করি। এখন মেলার অনুষ্ঠানে পারমর্ফ করার আমন্ত্রণ পাই। সবাইকে বিনোদন দিতে হবে। সবাইকে বিনোদন দিচ্ছি কিন্তু আমি কতটা পাচ্ছি সেটাই এখন দেখার বিষয়। এখন বৈশাখ অনেকটা ফেসবুককেন্দ্রিক হয়ে গেছে।

উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে প্রতিবছর পালিত হয় পয়লা বৈশাখ।দিনটিতে বাঙালি জাতি  তার অতীত ভুলে নতুনের আবাহনে মেতে ওঠে।  কিন্তু আমার মনে হয়, বৈশাখের মূল আনন্দ বৈশাখী মেলা। এর বাইরে মজার আর কিছু দেখি না। মানুষের জীবনে সময় বিভিন্নভাগে ভাগ করা থাকে। ছোট সময়ের এক অনুভূতি, আবার যখন একটু বড় হয়েছি তখন অন্যরকম অনুভূতি, আবার এখনকার একটা অনুভূতি। 


একটা সময় যা করতে পারতাম এখন তা করতে পারি না। ছোটবেলা একটা গাড়ি, একটা পুতুল বা একটা মাটির ঘোড়াতেই অনেক খুশি হতাম। তখন এগুলোই ছিলো বৈশাখ, এগুলোই ছিলো বৈশাখী আনন্দ। এখন একটা বেলি ফুলের মালা, লাল পাড়ের সাদা শাড়ি পরব, হাতভর্তি চুড়ি; একটু ঘুরতে বের হবো-দিনটি আনন্দে কেটে যাবে। সত্যি বলতে আমাদের এই ঐতিহ্য আমরা এখনও ধারাবাহিকভাবে মেনে যাচ্ছি। এটা কিন্তু প্রকৃত আনন্দ না। প্রকৃত আনন্দ হচ্ছে নানুর হাত ধরে মেলায় ঘুরতে যাওয়া। মেলায় বাঁশি বাজবে, বাতাসা খাব, নাগরদোলায় উঠবো, চিৎকার দেব-এটাই মজা, এটাই আনন্দ! রোলার কোস্টারে তো নাগরদোলার সেই আনন্দ নেই।

মনে পড়ছে, বৈশাখের মেলায় গিয়ে নানুর হাত ধরে রাখতাম যেন হারিয়ে না যাই। মেলায় উচ্চ স্বরে মাইক বাজতো, গান-বাজনা হতো, রঙিন ফিতা উড়তো, ঢোল বাজতো, বাঁশি বাজতো- এগুলো খুব মিস করি। বাতাসা বেশি খাওয়া যাবে না, দাঁতে পোকা ধরবে, বাতাসা গলে সেই রস জামায় মেখে যেত। আঠা আঠা হয়ে যেত সব। বাড়ি ফিরে এজন্য বকা খেতে হতো। লাঠি চকলেট ছিলো রং করা।এই চকলেট মেলায় খেলে জিহবা, ঠোঁটে লেগে যেত।

মেলা থেকে যেসব খেলনা কিনে দিত নানু এগুলো কেউ চুরি করতো না বা হারিয়ে যেত না। কিন্তু কিছুদিন গেলে আমি নিজেই ইচ্ছে করে ভেঙে ফেলতাম। ভাঙতে ভালো লাগতো। এটাই আমার খেলা ছিলো। একটু বড় হওয়ার পর মেলায় গেলে ছেলেরা ফিরে ফিরে তাকাতো। সে সময় নাগরদোলার সবাইকে নামিয়ে দিয়ে একা উঠতাম। এটা ওদের দেখানোর জন্য করতাম।


দৈনিক ডেসটিনি’র অনলাইনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


প্রকাশক ও সম্পাদক : মোহাম্মদ রফিকুল আমীন।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মিয়া বাবর হোসেন।
© ২০০৬-২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক ডেসটিনি.কম
আলী’স সেন্টার, ৪০ বিজয়নগর ঢাকা-১০০০।
বিজ্ঞাপন : ০১৫৩৬১৭০০২৪, ৭১৭০২৮০
email: ddaddtoday@gmail.com, ওয়েবসাইট : www.dainik-destiny.com
ই-মেইল : destinyout@yahoo.com, অনলাইন নিউজ : destinyonline24@gmail.com
Destiny Online : +8801719 472 162