সোমবার, আগস্ট ২০, ২০১৮ | ৫, ভাদ্র, ১৪২৫
 / জেলার খবর / টানা বর্ষনে তলিয়ে গেছে মীরসরাইয়ের নিন্মাঞ্চল ও ঘরবাড়ি
মীরসরাই প্রতিনিধি, ডেসটিনি অনলাইন :
Published : Wednesday, 13 June, 2018 at 2:12 PM, Count : 185
টানা বর্ষনে তলিয়ে গেছে মীরসরাইয়ের নিন্মাঞ্চল ও ঘরবাড়ি

টানা বর্ষনে তলিয়ে গেছে মীরসরাইয়ের নিন্মাঞ্চল ও ঘরবাড়ি

গত কয়েক দিনের টানা বর্ষনে মীরসরাইয়ের নিন্মাঞ্চল সহ অনেক স্থানে হাটবাজার ও বাড়িঘরে পানিতে তলিয়ে গেছে। কিছু পাহাড়ী এলাকায় ঝুকিপূর্ণ মানুষের বসবাসের খবর পাওয়া গেছে। পাহাড়ী ঢলে মাছের প্রকল্পগুলোতে ঝুকিপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করছে বলে জানা গেছে। বিশেষ করে মঙ্গলবার ( ১২ জুন) দিনভর হালকা ও ভারি বর্ষনের পর বর্ষা যেন জেকে বসেছে সর্বত্র। মৌসুমী শাকসবজির ক্ষেতগুলো অনেকটাই ক্ষতির সম্মুখিন। শষা, খিরা, কেয়ার, বেগুন, ঢেড়স, বরবটি ইত্যাদি ক্ষেতে পানি উঠে যাওয়ায় কৃষকদের মাথায় হাত এখন।



উপজেলার বড়তাকিয়া বাজারের দোকানী নুুরুল ইসলাম বলেন, ইতিমধ্যে বড়তাকিয়া বাজারের তাকিয়া গলি সহ কয়েকটি স্থানে পানি উঠে গেছে। এছাড়া মায়ানী, মঘাদিয়া. দুর্গাপর, কাটাছরা, ওচমানপুর, সাহেরখালী এলাকার অনেক স্থানে বাড়ি ঘরে রাস্তাঘাটে পানি উঠে গেছে। থেমে থেমে বর্ষন ভারি হয়ে উঠলে মানুষ আতংকগ্রস্থ হয়ে উঠছে।


ফেনাফুনি গ্রামের তামরিজ টার্কি এগ্রো ফার্ম এর সায়েফ উল্লাহ জানান, গোভানিয়া ও ফেনাফুনি গ্রামের অনেক বাড়ী উঠোন রাস্তাঘাট পানিতে থৈ থৈ করছে। বসতঘর গবাদি পশু সবকিছুই পানিতে ঢুবে গেছে অনেক বাড়িতে। তাঁর নিজের ঘরে এবং টার্কি ফার্মে ও একহাটু পানি এখন। ডুবে গেছে ফেনাফুনি ও গোভানিয়া গ্রামের বিভিন্ন সড়ক। ওচমানপুর ইউনিয়নের মৎস ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন বলেন, ইতিমধ্যে ইছাখালী, মঘাদিয়া ও ওচমানপুরের সহস্রাধিক মাছের প্রকল্পে কানায় কানায় পানি উঠে গেছে। পাহাড়ী ঢলের ছোঁয়া পেলেই তলিয়ে যাবে সকল মাছের প্রকল্প। তাই সকলের মনে আতংক বিরাজ করছে।


মীরসরাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ বলেন, এই মুহুর্তে মাঠে মৌসুমি সবজিই বেশী রয়েছে। লাগাতার বর্ষনে শাকসবজির বেশ ক্ষতি হচ্ছে। তবে আর এবার বৃষ্টিপাত ক্ষান্ত হলে ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারবে কৃষকরা। প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে ওয়াহেদপুর, খৈয়াছরা, করেরহাট, মীরসরাই এর তালবাড়িয়া এলাকায় অনেক স্থানে পাহাড়ের নিকটবর্তি পাদদেশে মানুষের বসতি রয়েছে। সেখানে ও ঝুকিপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করছে। তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল কবির জানান ইতিমধ্যে সবাইকে নিরাপদ স্থানে সরে যেতে বলা হয়েছে। 


দৈনিক ডেসটিনি’র অনলাইনে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


প্রকাশক ও সম্পাদক : মোহাম্মদ রফিকুল আমীন।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মিয়া বাবর হোসেন।
© ২০০৬-২০১৮ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক ডেসটিনি.কম
আলী’স সেন্টার, ৪০ বিজয়নগর ঢাকা-১০০০।
বিজ্ঞাপন : ০১৫৩৬১৭০০২৪, ৭১৭০২৮০
email: ddaddtoday@gmail.com, ওয়েবসাইট : www.dainik-destiny.com
ই-মেইল : destinyout@yahoo.com, অনলাইন নিউজ : destinyonline24@gmail.com
Destiny Online : +8801719 472 162